199032

প্রথম দুই ঘণ্টায়ই ২০২০ সালের উমরাহর জন্য ১৬০০০ জনের রেজিস্ট্রেশন

ফরহাদ খান নাঈম।।

গত রোববার উমরাহর অনলাইন মোবাইল এপ্লিকেশন ‘ইতামারনা’ চালু করার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সৌদির স্থানীয় নাগরিক ও প্রবাসীসহ ২০২০ সালের উমরাহ’র জন্য অন্তত ১৬০০০ জন রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

এরই মধ্যে উমরাহর অনলাইন মোবাইল এপ্লিকেশন ‘ইতামারনা’ এর মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশনের প্রথম দশ দিন অতিবাহিত হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ পবিত্র উমরাহ পালনার্থে হাজীদের হারামাইন শরীফাইনে প্রবেশ সীমাবদ্ধ করে দিয়েছে।

উমরাহর প্রথম পর্বে একদিনে প্রতি গ্রুপে ৫০০ জন করে ১২ টি গ্রুপে মোট ৬০০০ হাজীকে পবিত্র উমরাহ’র আনুষ্ঠানিকতা পালন করার অনুমতি দেওয়া হবে।

হাজীদের প্রত্যেকটি গ্রুপকে উমরাহ’র আনুষ্ঠানিকতা শুরু ও শেষ করার পর জীবাণুনাশক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে। দিনে অন্তত ১০ বার করে গোটা হারাম এরিয়াকে জীবাণুমুক্ত করা হবে বলে কর্তৃপক্ষের দেওয়া বিবৃতিতে জানা গেছে। আগত হাজীদের মাঝে প্যাকেটজাত করে জমজমের পানি সরবরাহ করা হবে।

হজ ও উমরাহ মন্ত্রণালয় থেকে জানা যায়, হাজীগণ কা’বা শরীফ ও হাজরে আসওয়াদের নিকটবর্তী হতে পারবেন না। কা’বা শরীফের চতুর্পাশে স্থাপিত নিরাপত্তা বেষ্টনীর বাইরে থেকে হাজীদেরকে তাওয়াফ সম্পন্ন করতে হবে। হাজীদেরকে সম্ভাব্য সকল চিকিৎসা সেবা দেওয়া হবে। আগতদের মধ্যে কারও করোনা পজিটিভ হলে, তার জন্য মেডিকেল আইসোলেশনের ব্যবস্থা থাকবে।

হারামাইন শরীফাইন পরিচালনা পর্ষদের প্রেসিডেন্ট শাইখ আব্দুর রহমান আসসুদাইস ইতিমধ্যে হাজীদের সর্বাত্মক সেবা নিশ্চিত করার জন্য মাঠ পর্যায়ের বিশেষ কর্মীদল তৈরি করার নির্দেশ দিয়েছেন।

বিশেষ এই কর্মীদলের মধ্যে চিকিৎসক ও প্রকৌশলীসহ বিভিন্ন পেশার অভিজ্ঞ লোকবল নিয়োগ দেওয়া হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সূত্রে জানা যায়, আগত হাজীদেরকে করোনা থেকে সুরক্ষিত রাখতে সর্বপ্রকার স্বাস্থ্যসুরক্ষামূলক ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে।

ইসলামিকইনফরমেশন ডট কম থেকে ফরহাদ খান নাঈমের অনুবাদ।

ads